ঠোঁট মোটা করার আগে ও পরের ছবিতে কাইলি জেনার।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রিয়েলিটি তারকা ও মডেল কাইলি জেনার এই পর্যন্ত অসংখ্য প্লাস্টিক সার্জারি করিয়েছেন। মাত্র ১৯ বছর বয়সে তিনটি বাড়ির মালিক হয়েছেন, অথচ চেহারার দিক থেকে কেন পিছিয়ে থাকবেন? পাতলা চিকন ঠোঁট তার পছন্দ ছিল না। তাই তিনি ছুঁড়ি কাঁচির নিচে নিজেকে সঁপে পেয়েছেন আকর্ষণীয় ঠোঁট। কিন্তু কেন এই পরিবর্তন, তা জানতে আজও আগ্রহী তার ভক্ত ও অনুসারীরা।

ঠোঁট মোটা করার আগে ও পরের ছবিতে কাইলি জেনার।

কাইলির সর্বশেষ শো ‘লাইফ অব কাইলি’-তে তিনি এই রহস্যের খোলাসা করলেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে ঠোঁট মোটা করার ইনজেকশন ব্যবহার করেন কাইলি। তিনি জানালেন, তার উদ্দেশ্য নাকি নিজেকে সুন্দর দেখানোই ছিল। কারণ পাতলা ঠোঁটে তিনি হীনমন্যতায় ভুগতেন। তিনি এও জানান, তখন তিনি যার প্রেমে পড়েছিলেন, তার ঠোঁটের সাইজের প্রতি দুর্বলতা ছিলো। সেই ব্যক্তি মোটা ঠোঁটের রমনী পছন্দ করতেন।

কাইলি বলেন, মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি প্রথম কাউকে চুমু খান। তখন সেই ব্যক্তির অভিব্যক্তি তাকে অসন্তুষ্ট করে। সেই ব্যক্তি জানিয়েছিলেন, ‘আমার মনে হয় না তুমি খুব ভালো চুমু খেতে পারো। কারণ তোমার ঠোঁট খুব পাতলা।’ এই একটি কথার কারণে তিনি ঠোঁটে প্লাস্টিক সার্জারি করান। কারণ তিনি সত্যিই মোটা ঠোঁটের অধিকারী হতে চেয়েছিলেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *